আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।

আচ্ছালামু আলাইকুম প্রিয় ভিজিটর - MR Laboratory এর পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম । আজকে আমি আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন। নিয়ে আলোচনা করে এই আর্টিকেল সম্পন্ন করব । আরর্টিকেলের মূল বিষয় বস্তু সম্পর্কে জানতে পেইজ সূচি তালিকা দেখুন।

আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন। সম্পর্কে আরো জানতে গুগলে সার্চ করুন - MRLaboratory.com

 

আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ

আরবি মাসের নাম 

আপনি জানেন কি , আরবি ১২ মাসের নাম,আরবি মাসের নাম,আরবি বারো মাসের নাম,আরবিতে ১২ মাসের নাম,আরবী মাসের নাম,১২ মাসের নাম,আরবি মাসের নামের অর্থ,আরবি মাসের নাম ক্যালেন্ডার ২০২০,মাসের নাম,আরবি বারো মাসের নাম আরবিতে,আরবি বার মাসের নাম,বারো মাসের নাম,আরবি ৭ দিনের নাম,আরবি ১২ মাসের নাম ও আমল,আরবি মাসের নাম ক্যালেন্ডার ২০২১,আরবি মাসের নাম দিয়ে গজল,আরবী ১২ মাসের নাম,আরবিতে মাসের নাম,আরবিতে ইংরেজি মাসের নাম,আরবিতে বারো মাসের নাম,অারবি বার মাসের নাম । আজকে আমরা এই সব পয়েন্ট নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব ইনশাল্লাহ আপনার ভালো লাগবে । 

আপনি কি জানেন আরবি বারটি মাসের নাম অর্থসহ? আপনি যদি না জেনে থাকেন তাহলে এখনি সময় ১২টি নাম মুখস্ত করে ফেলার। কারণ বিভিন্ন প্রয়োজনে আমাদের এই নামগুলো দরকার পড়ে।

আর আপনি যদি মুসলমান হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই এই নামগুলো মুখস্ত রাখতে হবে। কারণ বিভিন্ন উৎসব ও ইবাদতের জন্য এই নামগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আজকের পোস্টে আমরা আরবি ১২ মাসের নাম অর্থ সহ আলোচনা করব। এই লিখাটি পড়ার মাধ্যমে আপনি শিখবেন কিভাবে খুব সহজেই আপনার সন্তানকে আরবি মাসের নাম গুলো মুখস্ত করাবেন।

তাহলে চলুন মূল আলোচনা শুরু করা যাক।

আরবি বার মাসের নাম বাংলায়

  1.  মুহররম (Moharram)
  2. সফর (Safar)
  3. রবিউল আউয়াল (Robiul Awal)
  4. রবিউস সানি (Rabius Sani)
  5. জমাদিউল আউয়াল (Jamadiul Awal)
  6. জমাদিউস সানি (Jamadius Sani)
  7. রজব (Rajab)
  8. শাবান (Shaban)
  9. রমজান (Ramjan)
  10. শাওয়াল (Shawal)
  11.  জিলক্বদ (Jelkad)
  12. জিলহজ্জ (Jilhaj)

কোন উৎসব বা ইবাদত কোন মাসে পালিত হয় | আরবি মাসে গুরুত্বপূর্ণ দিন সমূহ

আমরা ইতিমধ্যেই বলেছি ইসলামিক উৎসবগুলো আরবি দিন ও তারিখ মোতাবেক পালন করা হয়ে থাকে। এখন আমরা জানবো কোন উৎসব কোন মাসের কত তারিখে অনুষ্ঠিত হয়। বা কোন ইবাদত কোন মাসের কত তারিখ থেকে কত তারিখ পর্যন্ত পালন করতে হয়।

শবে মি’রাজঃ রজব মাসের ২৭ তারিখে অনুষ্ঠিত হয়।

শবে বরাতঃ শাবান মাসের ১৫ তারিখ।

রমজানঃ রমজান মাসের প্রথম দিন হতে শেষ দিন পর্যন্ত।

ঈদুল ফিতরঃ শাওয়াল মাসের ১ তারিখ।

হজ্জঃ জিলহজ মাসের ৯ তারিখ।

ঈদুল আযহাঃ জিলহজ্ব মাসের ১০ তারিখ।

আশুরাঃ ১০ই মহররম।

ঈদ-ই-মিলাদুন্নবীঃ ১২ই রবিউল আউয়াল।

অর্থসহ আরবি মাসের নাম

আমরা আরবি ভাষার অর্থ শুনলে বুঝতে পারি এইখানে কি বলা হয়েছে । যেকোন ভাষার একটা অর্থ আছে , ঠিক আরবি ভাষার ১২ মাসের প্রতিটা নামের একটা অর্থ আছে ।

মহররম : জাহেলি যুগে এই মাসে কোনো ধরনের যুদ্ধবিগ্রহ ও রক্তপাত করা হারাম ও অবৈধ ছিল বলে এই মাসকে মুহাররমুল হারাম নামকরণ করা হয়েছে।

সফর : সফর শব্দটি সিফর থেকে নির্গত। এর অর্থ শূন্য হওয়া, জাহেলি যুগে সফর মাসে লোকেরা যুদ্ধের জন্য বের হয়ে গেলে ঘর শূন্য হয়ে যেত, তাই সফরের মাসের নাম সফর রাখা হয়েছে।

রবিউল আউয়াল : এই মাসের নামকরণকালে ফসলে রবি, অর্থাৎ বসন্তকাল ছিল।তাই এর নামকরণ হয়েছে রবিউল আউয়াল।

রবিউস সানি : এর নামকরণকালে বসন্তের শেষার্ধে পড়ার কারণে রবিউল আখের বা শেষ বসন্ত নাম রাখা হয়।


জুমাদাল আউয়াল : জুমাদা শব্দটি এসেছে জুমুদ থেকে, যার অর্থ জমে যাওয়া, স্থবির হওয়া। যখন এই মাসের নাম রাখা হয়, তখন ঠাণ্ডার মৌসুম আরম্ভ হয়, কেননা ঠাণ্ডার কারণে বেশির ভাগ জিনিস জমে যায়। এ জন্য এ মাসের নাম এভাবে রাখা হয়।

জুমাদাল সানি : এই মাসের নাম রাখার কারণ হচ্ছে, এই মাসের শেষে শীতের প্রচণ্ডতায় পানি পর্যন্ত জমে যেত।

রজব : রজব শব্দটি রজিব থেকে উদ্ভূত হয়েছে। এর অর্থ হলো সম্মান করা। আরববাসী যেহেতু এ মাসকে সম্মান করত এবং শাহরুল্লাহ অর্থাৎ আল্লাহর মাস বলত, তাই এ মাসের নাম রজব বা সম্মানিত মাস রাখা হয়।

শাবান : শাবান শাব শব্দ থেকে উদ্ভূত হয়েছে। এর অর্থ হলো বের হওয়া, প্রকাশ হওয়া, বিদীর্ণ হওয়া। যেহেতু এ মাসে বিপুল কল্যাণ প্রকাশিত হয়, মানুষের রিজিক উৎপাদন ও বণ্টিত হয় এবং তাকদিরের ফয়সালাগুলোও বণ্টন করে দেওয়া হয়। তাই এ মাসের নাম শাবান রাখা হয়েছে।

রমজান : রমজান শব্দের মূল অর্থ হচ্ছে জ্বালানো-পোড়ানো। যেহেতু এই মাসে মুমিনের গুনাহগুলো জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে ছারখার করে দেওয়া হয়। এ মাসের নাম রমজান রাখা হয়।

শাওয়াল : শাওয়াল শব্দটি ‘শাওল’ মূলধাতু থেকে নির্গত, অর্থ বাইরে গমন করা। এখানে আরববাসী নিজ ঘরবাড়ি ত্যাগ করে ভ্রমণে যেত। তাই এর নামকরণ করা হয় শাওয়াল।

জুলকদ/জিলকদ : ‘জুল/জিল’ অর্থ ওয়ালা আর ‘কাদাহ’ অর্থ বসা, যেহেতু এ মাস সম্মানিত মাসের একটি। আরবরা এ মাসে যুদ্ধবিগ্রহ বন্ধ করে বাড়িতে বসে থাকত।

জুলহজ/জিলহজ : জুলহজ/জিলহজ শব্দটি সম্ভবত হাজ্জাহ থেকে নেওয়া হয়েছে। এর অর্থ একবার হজ করা। অথবা শব্দটি ‘হিজ’ শব্দ থেকে নেওয়া হয়েছে। এর মানে অর্থবছর। যেহেতু এই মাস বছরের শেষাংশে আসে এবং এর দ্বারাই পূর্ণ বছরের সমাপ্তি ঘটে, তাই এই মাসের নামকরণ হয়েছে জুলহজ/জিলহজ।


আপনি আসলেই নিওটেরিক আইটির একজন মূল্যবান পাঠক । আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন। এর আর্টিকেলটি সম্পন্ন পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ । এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কেমন লেগেছে তা অবস্যয় আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন । আরো পড়ুনঃ -

আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।, আরবি মাসের নাম – আরবি ১২ মাসের নাম অর্থসহ – ইসলামিক বারো মাসের নাম জেনে নিন।
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
কোন মন্তব্য নেই
এই পোস্ট সম্পর্কে আপনার মন্তব্য জানান
comment url
এই ওয়েবসাইট বিক্রয় করা হবে
যোগাযোগ করুন